বিশ্বকাপে নামার আগে আত্মবিশ্বাস ফিরে পেতে চায় টাইগাররা

এফএনএস স্পোর্টস: টি-টোয়েন্টি বিশ্বকাপে মাঠে নামার আগে আত্মবিশ্বাস ফিরে পেতে চায় বাংলাদেশ দল। গতরাতে বিশ্বকাপে নিজেদের প্রথম অফিসিয়াল প্রস্তুতিমূলক ম্যাচে শ্রীলংকার কাছে ৪ উইকেটে হারে বাংলাদেশ ক্রিকেট দল। আজ এডিসি ওভাল-১ গ্রাউন্ডে বিশ্বকাপে নিজেদের দ্বিতীয় ও শেষ অফিসিয়াল প্রস্তুতিমূলক ম্যাচে আয়ারল্যান্ডের মুখোমুখি হবে বাংলাদেশ। আইরিশদের হারিয়ে টি-টোয়েন্টি বিশ্বকাপের আগে আত্মবিশ্বাস ফিরে পাবার লক্ষ্য বাংলাদেশের। ম্যাচটি শুরু হবে বাংলাদেশ সময় রাত ৮টায়। শ্রীলংকার বিপক্ষে প্রথম প্রস্তুতি ম্যাচে আশানুরূপ পারফরমেন্স করতে পারেনি বাংলাদেশ। ব্যাটিং-বোলিং দু’বিভাগেই ব্যর্থ ছিলো টাইগাররা। প্রথম প্রস্তুতিমূলক ম্যাচে ব্যাট-বল হাতে সফল ছিলেন সৌম্য সরকার। ২৬ বলে ৩৪ রান করেন সৌম্য। দলের পক্ষে সৌম্যর সর্বোচ্চ রানের সুবাদে ২০ ওভারে ৭ উইকেটে ১৪৭ রান তুলে বাংলাদেশ। পরে বল হাতে ২ উইকেট নেন সৌম্য। বাংলাদেশের ছুঁড়ে দেয়া ১৪৮ রানের টার্গেট ১ ওভার বাকী থাকতে স্পর্শ করে ফেলে শ্রীলংকা। ১৯ ওভারে ৬ উইকেটে ১৪৮ রান করে লংকানরা। দীর্ঘদিন পর সৌম্যর ফর্মে ফেরাটা বাংলাদেশের জন্য স্বস্তির। কিন্তু টি-টোয়েন্টি বিশ্বকাপের প্রথম ম্যাচের আগে জয়ের পথে ফিরে আসাটা বাংলাদেশের জন্য গুরুত্বপূর্ণ। ওয়ানডে বিশ্বকাপ এবং চ্যাম্পিয়ন্স ট্রফির পর ক্রিকেটের তৃতীয় বৃহত্তম উৎসব হিসেবে বিবেচিত টি-টোয়েন্টি আসর। পিঠের ইনজুরির কারণে প্রথম প্রস্তুতিমূলক ম্যাচে খেলতে পারেননি অধিনায়ক মাহমুদুল্লাহ রিয়াদ। বিশ্রামে ছিলেন পেসার মুস্তাফিজুর রহমান। দ্বিতীয় ম্যাচে মুস্তাফিজ খেলবেন, তবে মাহমুদুল্লাহর খেলার বিষয়টি পরিস্কার নয়। মাহমুদুল্লাহর ইনজুরি গুরুতর নয়, তবে বিশ্বকাপে প্রথম রাউন্ডে তিনটি ম্যাচ খেলবে বাংলাদেশ। প্রথম রাউন্ডের আগে হাতে সময় থাকায় মাহমুদুল্লাহকে বিশ্রামে রেখেছে টিম ম্যানেজমেন্ট। এই ম্যাচ শেষে প্রথম রাউন্ডের আগে আগামী শুক্রবার ওমানে ফিরবে বাংলাদেশ। ১৭ অক্টোবর স্কটল্যান্ডের বিপক্ষে ম্যাচ দিয়ে বিশ্বকাপ মিশন শুরু করবে মাহমুুদুল্লাহ এ- কোং। এরপর ১৯ ও ২১ অক্টোবর যথাক্রমে যৌথ আয়োজক ওমান ও পাপুয়া নিউ গিনির বিপক্ষে খেলবে বাংলাদেশ। প্রথম রাউন্ডে কঠিন প্রতিপক্ষের বিপক্ষে খেলতে হবে না, তাই সহজেই সুপার টুয়েলভে খেলার যোগ্যতা অর্জন করবে তারা। টাইগাররা এখন পর্যন্ত ক্রিকেটের এই সংক্ষিপ্ত সংস্করণের বিশ্বকাপে ২৫ টি ম্যাচ খেলেছে এবং মাত্র পাঁচটিতে জিতেছে। এর মধ্যে বাছাই পর্ব থেকেই চারটি জয় এসেছে। মূল পর্বে ওয়েস্ট ইন্ডিজের বিপক্ষে মাত্র একটি ম্যাচ জিতেছে তারা।
বাংলাদেশ দল : মাহমুদুল্লাহ রিয়াদ (অধিনায়ক), সাকিব আল হাসান, মুশফিকুর রহিম, সৌম্য সরকার, লিটন কুমার দাস, আফিফ হোসেন, মোহাম্মদ নাঈম শেখ, নুরুল হাসান সোহান, শামীম হোসেন, মুস্তাফিজুর রহমান, মোহাম্মদ সাইফুদ্দিন, রুবেল হোসেন, শরিফুল ইসলাম, শেখ মাহেদি হাসান, নাসুম আহমেদ ও তাসকিন আহমেদ।